Gift

প্রেয়সীর জন্মদিনে উপহার কী দিবেন?

প্রেমিকার সাথে জড়িত সবকিছুই স্পেশাল। হোক তা রেগুলার ডেট কিংবা কোন বিশেষ উপলক্ষ। আর বিশেষ দিনগুলোর মধ্যে অ্যানিভার্সারির পাশাপাশি আসে তার জন্মদিনের কথা! আপনার মনের মানুষটি এই শুভদিনে পৃথিবীতে এসেছিলো! এ এক অনন্য অনুভূতি! স্বাভাবিকভাবেই আমরা সবাই চাই নিজের প্রেমিক বা প্রেমিকার জন্মদিনটাকে আনন্দ আয়োজনে সাজিয়ে তুলতে। মেয়েরা যেমন প্রেমিকের জন্মদিনে নিজের হাতে তার প্রিয় খাবার রান্না করতে পছন্দ করে, তেমনি তাদের অন্যান্য আয়োজনেও থাকে নিজের হাতের কিছু না কিছু ছোঁয়া। অপরদিকে, প্রেমিকার জন্মদিনে ছেলেদের আয়োজনটা হয় অনেকটাই রেডিমেড। তবে নিজের প্রচেষ্টার কিছুটা আমেজ তো কমবেশি সবাই রাখতে চায়! সেজন্য আজকাল গিফট শপগুলোর পাশাপাশি অনলাইন শপগুলোতেও কাস্টমাইজড গিফট আইটেম পাওয়া যায়। প্রিয় মানুষটিকে যেকোন উপহার দেবার আগে তার পছন্দ বা লাইফস্টাইল সম্পর্কে জানা থাকলে ভালো হয়। নিজের পছন্দের ঘরানার উপহার পেলে যেমন আমাদের আনন্দটা আরো বেড়ে যায়, তেমনি সেটি নিয়মিত ব্যবহার করতে দেখলে উপহার প্রদানকারীরও মনটা প্রফুল্ল হয়ে যায়। 

ভালোবাসা প্রকাশের ধরণের তো কোন শেষ নেই। তেমনি উপহারের ধরণেরও কোন সীমানা নেই। তবে কিছু গিফট আইটেম তরুণ সমাজের মাঝে বেশি প্রচলিত। আজকে আলোচনা হবে সেসব আইটেম নিয়েই। 

চকোলেটঃ চকোলেটপ্রেমীদের কোন বয়স থাকে না! যেকোনও বয়সের মানুষের কাছে খুব পছন্দের গিফট হলো চকোলেট। তাই তো প্রিয় মানুষের জন্মদিনে চকোলেট ছাড়া যেন মিষ্টিমুখ করাটাই অপূর্ণ থেকে যায়!  আর সেটা যদি হয় Cadbury Eclairs Box, Ferraro Rocher, Hershey’s Kisses, Dairy Milk Silk তাহলে তো কথাই নেই! 

ফুলঃ জন্মদিনের গিফটের তালিকায় সবার ওপরে থাকে ফুল। ফুল দেওয়ার মাধ্যমে গিফট প্রদানকারীর আন্তরিকতাই যে শুধু প্রকাশ পায় তাই নয়, ফুল দেওয়াকে ইসলামে সুন্নত বলা হয়! ফুলের নানান রঙ আর মন মাতানো সুবাস আপনার প্রিয় মানুষটির মন ভালো করে দিতে পারে মুহূর্তেই। একটি ফুল হোক কিংবা একগুচ্ছ, গিফট হিসেবে তাই ফুলের আবেদন সবসময়ই বেশি। 

টেডি বিয়ার গিফট কম্বোঃ মেয়েরা স্বাভাবিকভাবেই যত্নে রাখা যায় অথবা আদর করা যায় এমন উপহার পছন্দ করে। একটা টেডি বিয়ার মানে হলো ঘরের ভেতর একটা নিত্য সঙ্গী সাথে যত্নে আগলে রাখার মতো কিছু। অনেকের তো অভ্যাসই থাকে টেডি বিয়ার সাথে নিয়ে ঘুমানোর! তাই প্রেমিকাকে টেডি বিয়ার উপহার দিলে তার কাছে মনে হয় ওই টেডি বিয়ারের মাঝে সে আপনার মতোই একজন সঙ্গী খুঁজে পায়। সবসময়ই আপনার সঙ্গ তার সাথে আছে। অনলাইন গিফট শপগুলোতে টেডি বিয়ারের সাথে গিফট কার্ড আর চকোলেট কম্বো করে দেওয়া হয় অনেক সময়। ফলে জন্মদিনের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি উপলক্ষে এটি হয়ে ওঠে এক আদর্শ উপহার! বাহারি ধরণের টেডি বিয়ার আছে মার্কেটে। আপনার প্রেমিকার পছন্দ অনুযায়ী বেছে নিতে পারেন কোন বিখ্যাত কার্টুন চরিত্র অথবা কিউট কোন টেডি।

ঘড়িঃ উপহার হিসেবে রিস্ট ওয়াচ এবং দেয়াল ঘড়ি, দু’টোই সমান জনপ্রিয় আর উপকারী। ব্যস্ততার এই যুগে সময়ের খেয়াল রাখা এবং তার সাথে তাল মেলানোর দরকার হয় আমাদের সবারই। ফলে ঘড়ি খুব উপযোগী একটি উপহার। পাশাপাশি, ঘড়িটি মনে করিয়ে দেয় যে, দিনের প্রতিটি মিনিটে আপনি শুভাকাঙ্ক্ষী হয়ে প্রেমিকার পাশে আছেন, থাকতে চান আজীবন। তাই ঘড়ি হয়ে ওঠে তার ভালো লাগার একটি অনন্য উৎস।

গিফট কার্ডঃ জন্মদিনের উপহার হিসেবে খুব জনপ্রিয় একটি আইটেম হলো গিফট কার্ড। এতে লেখা থাকতে পারে আপনার নিজস্ব কোন ম্যাসেজ অথবা বিখ্যাত কোন গান বা কবিতার লাইন। আবার, কেউ কেউ নিজেদের বিভিন্ন স্মৃতির ছবি জুড়ে দেন কার্ডের সাথে। অনলাইন গিফট শপগুলোতে কাস্টমাইজড গিফট কার্ড পাওয়া যায়। এতে আপনি সংযোজন করতে পারেন নিজের এবং প্রেমিকার নাম, ছবিসহ আরো অনেককিছু। ফলে নানা স্মৃতির মাঝে তার জন্মদিনের আনন্দ বেড়ে যায় কয়েকগুণ!

বইঃ বইকে মনে করা হয় জন্মদিনসহ যেকোন উৎসবের জন্য সবচেয়ে ক্ল্যাসিক গিফট। একটি বই মানে হলো জ্ঞান, অভিজ্ঞতা আর কল্পনার সংমিশ্রণ। খুব ভালো হয় যদি আপনার প্রেমিকার প্রিয় লেখকের কোন বই দিতে পারেন। বইয়ের মলাটের ভেতর শুভেচ্ছা বার্তা লিখে দেওয়া তো বাঙালির বহুযুগের সংস্কৃতি! ফলে লেখকের লেখনীর সাথে এতে মিশে যায় আপনার এখানে ওখানে খুঁজে বই আনার আন্তরিকতা আর আপনার শিল্পজ্ঞানের ছোঁয়া। ইদানিং হাতে নিয়ে বই পড়ার চল কমে এলেও অনেকেই পিডিএফ পড়ার চাইতে হাতে নিয়ে বই পড়তে পছন্দ করেন বেশি। আর এই স্মৃতিটি তার সাথে থেকে যায় সারাজীবন!

পার্সঃ আধুনিক মেয়েদের অন্যতম অনুষঙ্গ হলো পার্স। অফিস অথবা ক্যাম্পাসে যাওয়ার জন্য হোক কিংবা অনুষ্ঠানে বা সাধারণ ঘুরতে যাওয়ার জন্য, পার্স তো সব মেয়ের সাথেই থাকে! নিজের প্রয়োজনীয় ছোটখাট জিনিসগুলো এতে বহন করার সময় তার মনে পড়ে যাবে আপনার কথা। পার্স তৈরির ম্যাটেরিয়াল বিভিন্ন ধরণের হয়। কেউ কেউ লেদার পছন্দ করেন আভিজাত্য আর স্টাইলের জন্য, তো কেউ আবার কাপড়ের তৈরি দেশী ঘরানার পার্স ব্যবহারে স্বচ্ছন্দ। কাস্টমাইজ করে বিভিন্ন আইকন অথবা ছবিও বসিয়ে নেওয়া যায় অনেক পার্সে। ফলে এই উপহারটি পেয়ে তার কাজেও লাগে আবার শৌখিনতাও পূরণ হয়।

পারফিউমঃ ছেলে হোক বা মেয়ে, পারফিউম পছন্দ করে সবাই। কারো কারো পারফিউমের গন্ধে এলার্জি থাকে কিন্তু সে সমস্যা সমাধানে আছে মৃদু সুবাসের পারফিউম। ঘর থেকে বেরোনোর সময় কমবেশি সবাই কিছু না কিছু সুগন্ধি ব্যবহার করে। আর মেয়েদের ক্ষেত্রে এই অভ্যাসটা আরো বেশি। ব্র্যান্ডভেদে পারফিউমের দাম এবং সুবার বিভিন্ন হয়। আওনার প্রেমিকার প্রিয় ব্র্যান্ডের পারফিউমটি তাকে একই সাথে মুগ্ধ এবং আনন্দিত করতে পারে।

জুয়েলারিঃ গহনা পছন্দ করে না এমন নারী পাওয়া দুষ্কর! ছোট্ট একজোড়া কানের দুল হোক অথবা জাঁকালো নেকলেস, গহনা যেন মেয়েদের চেহারাই বদলে দেয়! অ্যান্টিক, উডেন, মেটাল, ফ্যাব্রিক ছাড়াও পুঁতি, মুক্তা ইত্যাদি গহনা মার্কেটে এবং অনলাইন শপে অহরহ পাওয়া যায়।

তাহলে আর দুশ্চিন্তা নেয়! এবার শুধু প্ল্যনিং করুন আর চমকে দিন আপনার প্রেমিকাকে! তার জন্মদিনটি হোক বছরের সবচেয়ে সুন্দর দিন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *